• মাধুকর প্রতিনিধি
  • তারিখঃ ৫-১-২০২৩, সময়ঃ বিকাল ০৩:২৬
  • ৪৭৯ বার দেখা হয়েছে

গাইবান্ধা পৌর এলাকায় দরিদ্রদের সহায়তায় কোটি টাকার প্রকল্প

গাইবান্ধা পৌর এলাকায় দরিদ্রদের সহায়তায় কোটি টাকার প্রকল্প

নিজস্ব প্রতিবেদক ►

গাইবান্ধা পৌর এলাকায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সহায়তায় কাজ করবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম (ইউডিপি)। ইউডিপি গাইবান্ধা পৌরসভায় জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে জলবায়ু অভিবাসী এবং নতুন দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য ২০২২-২৩ এবং ২০২৩-২৪ অর্থ বছরে ১ কোটি ৪ হাজার এক শত বাষট্টি টাকার প্রকল্প হাতে নিয়েছে। বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) গাইবান্ধা পৌরসভার সভাকক্ষে প্রকল্প অবহিতকরণ ও জলবায়ু সহিষ্ণু জীবিকা অন্বেষণ বিষয়ক সভায় এই তথ্য জানানো হয়।

 প্রকল্প অবহিতকরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন গাইবান্ধা পৌরসভার মেয়র মতলুবর রহমান। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ব্র্যাকের হেড অফ প্রোগ্রাম ইমামুল আজম শাহী। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ও নগর দরিদ্র সুরক্ষা ফোরামের সহ-সভাপতি জহুরুল কাইয়ুম, গাইবান্ধা পৌরসভার প্যানেল মেয়র শহীদ আহম্মেদ এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আনিছুর রহমান। 
গাইবান্ধা পৌরসভার সমাজ উন্নয়ন কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম এর সঞ্চালনায় প্রকল্পের সার্বিক বিষয় তুলে ধরেন ব্র্যাক আরবান ডেভেল্পমেন্ট প্রোগ্রামের রিজিওনাল কোঅর্ডিনেটর অপূর্ব সাহা। তিনি বলেন,“এই প্রকল্পকে আমরা ইকোনোমিক রিকভারী প্রজেক্ট বা সংক্ষেপে ইআরপিও বলতে পারি। আপাতত ২০২২ থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত এই প্রকল্পের মেয়াদ। ভবিষ্যতে প্রকল্পের মেয়াদ বাড়তেও পারে। গাইবান্ধা পৌর এলাকার ৭০০টি পরিবারের মাঝে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।

এর মধ্যে ৫০০টি পরিবার থেকে জলবায়ু অভিবাসী ও নতুন দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য আয়বর্ধনমূলক সম্পদ প্রদানের মাধ্যমে কর্মসংস্থান তৈরি করা হবে। ৫০টি পরিবারের শিশুদের প্রথম ৬ মাস পুষ্টি ঘাটতি পূরণে সহায়তা দেওয়া হবে। ৫০ জনকে দক্ষতা উন্নয়নের পাশাপাশি ৩৭৫ জনকে ব্যবসা উন্নয়নে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এছাড়া ৩টি সুপেয় পানির জন্য ওয়াটার পয়েন্ট এবং কমিউনিটি ল্যাট্রিন স্থাপন করা হবে।”

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগাম, ব্র্যাক এর হেড অফ প্রোগ্রাম ইমামুল আজম শাহী বলেন,“ বাংলাদেশে ঘন ঘন প্রাকৃতিক দুর্যোগে এবং করোনা মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে দেশের কৃষিনির্ভর আর্থ সামাজিক অবস্থার অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে আয় উপার্জন বা বসতিভিটা হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে হচ্ছে জলবায়ু অভিবাসী ও নতুন দরিদ্র জনগোষ্ঠী। গাইবান্ধা পৌর এলাকায় এই প্রকোপ বেশি। আমরা দেশের প্রায় সব সিটি কর্পোরেশনে কাজ করছি।যে কয়েকটি পৌরসভায় এই প্রকল্পটি রয়েছে তার মধ্যে গাইবান্ধা অন্যতম। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে যারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন, আমাদের সর্বাত্মক চেষ্টা থাকবে তাদের সহযোগিতা করার।”  

সমাপনি বক্তব্যে গাইবান্ধা পৌরসভার মেয়র মতলুবর রহমান বলেন,“ দীর্ঘদিন ধরে ব্র্যাক ইউডিপি পৌর এলাকার হত দরিদ্র মানুষদের নিয়ে কাজ করছে। এ জন্য ব্র্যাককে ধন্যবাদ জানাই। গাইবান্ধা পৌরসভা প্রথম শ্রেণীর হলেও এ কথা বলতে দ্বিধা নেই যে, আমাদের স্যানিটেশন ব্যবস্থা অত্যন্ত নাজুক। এখনও পৌরসভার অনেক এলাকায় কাঁচা ল্যাট্রিন ব্যবহৃত হয়, যা স্বাস্থ্যসম্মত নয়। আমি ইউডিপি, ব্র্যাককে অনুরোধ করব যেন পৌর এলাকার স্যানিটেশন ব্যবস্থার দিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন, সেখানে আমাদের স্যানিটেশন নিয়ে ভাবতে হচ্ছে। এটা খুবই দুঃখজনক। প্রয়োজনে আমরা ল্যাট্রিনের হাউজ বানানোয় সহায়তা করবো তবুও আপনারা স্যানিটেশন ব্যবস্থায় গুরুত্ব দিন।”

প্রকল্প অবহিতকরণ সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গাইবান্ধা পৌরসভার প্যানেল মেয়র আব্দুল ছামাদ রোকন, সংরিক্ষত আসনের কাউন্সিলর মাহাফুজা খাঁন, সাবিনা বেগম, কাউন্সিলর শেখ শাহীন, রকিবুল হাসান সুমন, মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক, কাজী হুমায়ুন কবীর স্বপন, পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হানিফ সরদার, নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল হক, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা বিপুল কুমার সাহা, ব্র্যাকের জেলা সমন্বয়কারী মোশাররফ হোসেন, ব্র্যাকের ফিল্ড কোঅর্ডিনেটর নিশিত কুমার বিশ্বাস, তালহা তাসনিম, নগর দরিদ্র সুরক্ষা ফোরামের সদস্য জাহাঙ্গীর কবীর তনু, সুজন প্রসাদ, রাকিব হাসান সীমান্ত প্রমূখ। 
 

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়