• মাধুকর প্রতিনিধি
  • তারিখঃ ৪-১-২০২৩, সময়ঃ বিকাল ০৫:১৬
  • ৬৬ বার দেখা হয়েছে

গাইবান্ধা-৫ আসনের উপ-নির্বাচন সুষ্ঠ, সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত 

গাইবান্ধা-৫ আসনের উপ-নির্বাচন সুষ্ঠ, সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত 

নিজস্ব প্রতিবেদক ►

কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই জাতীয় সংসদের ৩৩ গাইবান্ধা-৫ সাঘাটা ফুলছড়ি আসনের উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। ইলেক্ট্রনিক ভোটিং পদ্ধতি ইভিএমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৮টা ৩০ মিনিট থেকে বিরতিহীনভাবে বিকাল ৪টা ৩০ মিনিট অবধি চলে ভোট গ্রহণ চলে। কেন্দ্রগুলিতে ভোটার উপস্থিতি ছিল কম। সাঘাটা উপজেলার জুমারবাড়ি ইউনিয়নের চর গোবিন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ কয়েকটি কেন্দ্রে দুপুর ২টা ৪৫ মিনিটে ভোটার উপস্থিতি শুন্য দেখা গেছে। এই কেন্দ্রে ২টা ৪৮ মিনিটে ১৪৫টি কেন্দ্রে ৯৫২টি বুথে ভোট গ্রহন হচ্ছে। এতে মোট ভোটার রয়েছে ৩লাখ ৩৯ হাজার ৯৮ জন। 

৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। প্রার্থীরা হলেন- আওয়ামীলীগ এর মাহমুদ হাসান রিপন, জাতীয় পার্টি ( জাপা)'র গোলাম শহিদ রঞ্জু, বিকল্প ধারার কুলা প্রতিকে এ্যাড: জাহাঙ্গীর আলম, সৈয়দ মাহবুবুর রহমান। এরমধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী'র নাহিদুজ্জামান আগেই নির্বাচন থেকে সরে দাড়ান।

বিকল্প ধারার কুলা প্রতিকে এ্যাড: জাহাঙ্গীর আলম জানান, বেশ কয়েকটি কেন্দ্র ঘুরলাম। এখন অবধি সুষ্ঠ, সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ভোট। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ফুলছড়ি সাঘাটা আসনের মানুষ যদি ভোট দিতে আসে। তাহলে তারা এবার নৌকা ও জাতীয় পার্টিকে বর্জন করলে আমি জয়ের বিষয়ে আশাবাদী।

"ভরতখালি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভোট দিতে আসা ভোটার আশরাফুল জানান, সুষ্ঠ ও সুন্দরভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ভোট গ্রহন। ব্যালট পেপার থেকে ইভিএমে ভোট দিতে পেরে খুব ভাল লাগল। ব্যালট পেপারে ভোট নষ্ট হবার শংকা থাকে।

আওয়ামীলীগ সভাপতি কামরুজ্জামান কাদেরী ওরফে নিয়াজ কাদির জানান, ইলেক্ট্রনিক ভোটিং পদ্ধতি ( ইভিএম) ভোট দিতে পেরে খুব ভাল লাগল। সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হচ্ছে ভোট গ্রহন। যারা ভোট গ্রহনের দায়িত্বে রয়েছে তারাও ভাল।

ভরতখালি উচ্চ বিদ্যালয় প্রিজাইডিং অফিসার শ্যাম সুন্দর মিত্র জানান, অত্যন্ত সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ভোট গ্রহন। এই কেন্দ্রে ৮টি বুথে ৩ হাজার ১শ ২৯ জন নারী ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। তবে ভোটার উপস্থিতি কম।

নির্বাচনের দায়িত্বে ছিল নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট, বিজিপি, পুলিশ সদস্য, ডিবি পুলিশ সহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। 
উল্লেখ্য, গত ১২ অক্টোবর ২২ ইং তারিখ ভোটকেন্দ্রে কারচুপি ও অনিয়ম এর অভিযোগ তুলে ভোট স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন।
 
 

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়