• মাধুকর প্রতিনিধি
  • তারিখঃ ৭-১২-২০২২, সময়ঃ সকাল ০৯:৩৩
  • ৭৬ বার দেখা হয়েছে

গাড়িতে এলইডি বাতির তীব্র আলোয় সড়কে বাড়ছে দুর্ঘটনা

গাড়িতে এলইডি বাতির তীব্র আলোয় সড়কে বাড়ছে দুর্ঘটনা

নিজস্ব প্রতিবেদক ►

গাইবান্ধায় দিন দিন বাড়ছে বিভিন্ন যানবাহনে এলইডি লাইটের ব্যবহার। সন্ধ্যা নামতেই সড়ক, মহাসড়কে এলইডি লাইট লাগিয়ে অটোরিকশা, মাহিন্দ্রা, নসিমন, করিমন, মোটরসাইকেল চলছে। এলইডি লাইটের তীব্র ঝলকানিতে দুঘটনার সম্মুখীন হচ্ছে বিপরীত দিক থেকে আসা যানবাহনগুলো।

এলইডি বাতির তীব্র আলোর ঝলকানি পড়লে বিভ্রান্তিতে পড়ছেন অনেকেই। বাহনগুলোর গতি, আকার-আকৃতি নির্ধারণ করতে না পেরে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার সম্মুখীন হচ্ছে বিপরীত দিক থেকে আসা যানবাহন। তবে পুলিশ ও গাইবান্ধা বিআরটিএ সার্কেল একাধিকবার অভিযান ও সচেতনামূলক প্রচারণা চালালেও থামছে না এসব বাতির ব্যবহার।

গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডের ব্যবসায়ী মিলন মিয়া বলেন, সন্ধ্যা নামলেই সড়ক ও মহাসড়কে এলইডি লাইটের কারণে চলাচল করা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। বিভিন্ন যানবাহনে এলইডি লাইটের ব্যবহার করায় মোটরসাইকেল চালাতে গিয়ে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। এসব লাইটের আলোর ঝলকানিতে চোখ এলোমেলো হয়ে যায়।

প্রাইভেটকারচালক মো. হিরু মিয়া জানান, রাস্তায় চলাচলের সময় এসব আলোয় বিপরীত দিক থেকে আসা যানবাহন চেনা যায় না, যে কারণে দুর্ঘটনা ঘটে। শীতকালে কুয়াশায় চলাচলের জন্য এসব লাইট বেশি ব্যবহার হয়।

জানতে চাইলে জেলা ট্রাফিক বিভাগের ইনচার্জ মো. নুর আলম সিদ্দিক জানান, এসব এলইডি বাতির তিকর দিক এবং চালকদের সচেতনতার জন্য নিয়মিত সচেতনতামূলক কর্মসূচি পরিচালিত হচ্ছে। সেই সঙ্গে এসব লাইট বন্ধে নিয়মিত অভিযান চলছে।

বিআরটিএ গাইবান্ধা সার্কেলের মোটরযান পরিদর্শক মো. আমিনুল ইসলাম খান জানান, এ ধরনের এলইডি লাইট মানব দেহের জন্য অত্যন্ত তিকর। সেই সঙ্গে এ লাইটের অতি উজ্জ্বল আলো সরাসরি আঘাত করায়,  শিশুসহ নানা বয়সী মানুষের চোখের স্থায়ী তির হয়। তিন চাকার যানবাহনে ও কিছু মোটরসাইকেলে এ ধরনের বাতি বেশি ব্যবহার হয়ে থাকে। শীতকালে এসব লাইটের ব্যবহার বৃদ্ধি পায়। এসব লাইট বন্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হবে।
 

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়