• মাধুকর প্রতিনিধি
  • তারিখঃ ২৫-১০-২০২২, সময়ঃ সকাল ১০:১৮
  • ১০৬ বার দেখা হয়েছে

শীতকালিন সবজি চাষ করে লাভবান কৃষক 

শীতকালিন সবজি চাষ করে লাভবান কৃষক 

ভবতোষ রায় মনা ►

শীত আসন্ন তাই গাইবান্ধা জেলা জুড়ে চলছে শীতকালিন শাক-সবজির চাষাবাদ। ক্ষেতে ক্ষেতে চলছে নতুন ফসল লাগানো ও পরিচর্চার কাজ। কৃষকরা বলছেন, আগাম শীতকালিন সবজি চাষে বাড়তি পরিচর্ষায় এবং ব্যয় বেশি হলেও বাজার দর ভলো পাওয়া আর্থিক ভাবে লাভবান হচ্ছেন চাষিরা। 

আশি^নের সকালের হালকা কুয়াশা মনে করিয়ে দিচ্ছে শীতের আগমন বার্তা। এরিমধ্যে জেলার গোবিন্দগঞ্জ, পলাশবাড়ী, সাদুল্লাপুর, সাঘাটা, ফুলছড়িসহ সাতটি উপজেলায় শুরু হয়েছে শীতকালিন সবজি চাষাবাদ। শীতের শুরুতেই আগাম ফসল উৎপাদনে ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছে চাষীরা। অনুকুল আবহওয়ায় আর সেই সাথে উৎপাদিত সবজির বাজার দর ভালো পেলে শীতকালিন ফসল আবাদে লাভবান হবেন চাষীরা। 

ফুলছড়ি উপজেলার সবজি চাষী আয়নাল হক বলেন, শীতের সবজির চাহিদা বেশি বাজারে। সকাল সকাল টাটকা শাকসবজি ভালো দামে বিক্রি হয়। সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ধোপাডাঙ্গা গ্রামের জসিজল হক বলেন, উৎপাদন ব্যয় বাড়লেও আগাম শীতকালিন সবজির বাজার দর ভালো পাওয়ায় এ আবাদে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা। 

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কোচাশহরের ময়নুল ইসলাম জানান, লালশাক, পুইশাক, পালংশাক, ঢেরশ, মুলা, বেগুন, ফুলকপি, বাধা কপি, লাউ, সিম, বরবটি আবাদে করেছি। বাজারে প্রচুর চাহিদা। পাইকারি বিক্রি করে ভালো দাম পাচ্ছি। এছাড়া স্থানীয় বাজারে খুচরাও বিক্রি করি। নিজের পরিবারের চাহিদাও মিটছে, বাজারে বিক্রি করে দুটা পয়সাও উপর্জন হচ্ছে। 

গাইবান্ধা কৃষি বিভাগের উপপরিচালক বেলাল হোসেন বলেন, শীতকালিন সবজি চাষের উচ্চ ফলনশীল নতুন নতুন জাত আসায় এ আবাদে লাভবান হচ্ছেন চাষিরা। শীতকালিন সবজি চাষ পদ্ধতি, ভালো জাত ও রোগ বালাইসহ বিভিন্ন বিষয়ে কৃষকদের প্রয়োজনীও পরামর্শ সহায়তা দিচ্ছেন স্থানীয় কৃষি বিভাগ।

স্থানীয় কৃষি বিভাগ চলতি মৌসমে জেলায় প্রায় ৯ হাজার হেক্টর জমিতে শীতকালিন সবজি চাষের লক্ষমাত্র নির্ধারণ করেছেন। যার উৎপাদন লক্ষমাত্র ধরা হয়েছে ২ লক্ষ ২৫ হাজার মেট্রিক টন। উৎপাদিত সবজি জেলার চাহিদা মিটিয়ে উৎবৃত্ত সবজি ঢাকাসহ দেশের অন্য জেলাতে সরবরাহ করা হবে। 

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়