• মাধুকর প্রতিনিধি
  • তারিখঃ ২৮-১০-২০২২, সময়ঃ দুপুর ০২:৫৩
  • ৬৯ বার দেখা হয়েছে

সাঁকোই যাদের একমাত্র ভরসা!

সাঁকোই যাদের একমাত্র ভরসা!

আব্দুর রউফ রিপন, নওগাঁ  ►

সবুজে ঘেরা নওগাঁর আত্রাই উপজেলার ভোঁপাড়া ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী একটি গ্রামের নাম জামগ্রাম। এ গ্রামের পশ্চিম দিক দিয়ে বয়ে গেছে একটি ছোট্ট খাল। যে খালে সারাটা বছর জুড়ে বর্ষা ও শুষ্ক মৌসুমেও পানি থাকে। এই খালের উপর একটি ব্রিজ না থাকায় যুগের পর যুগ ধরে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে কয়েক হাজার মানুষকে। 

খালের উপর নির্মাণ করা গ্রামবাসীদের তৈরি বাঁশের সাঁকোই খালের দুপারের মানুষদের একমাত্র ভরসা। একটি ব্রিজের অভাবে যুগ যুগ ধরে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে দু’পাড়ের সাধারন মানুষ, শিক্ষার্থী, কৃষকসহ হাজারও মানুষ। এলাকার উৎপাদিত ফসল বাজারজাতকরণ নিয়ে একদিকে কৃষকেরা যেমন বিরম্বনায় পড়ছেন, অন্যদিকে শিক্ষার্থী এবং সাধারণ পথচারিরাও পড়েছে বিপাকে। 

সম্প্রতি খালটি এলজিইডির আওতায় পুন:খনন করায় তা অনেক গভীর হয়েছে। এ খালের পূর্বপাশে শতশত পরিবারের বসবাস যা ঐতিহ্যবাহী জামগ্রাম গ্রাম। খালের পশ্চিম দিকে রয়েছে বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ। গ্রামের শতশত কৃষক এ মাঠেই বোরো ও আমন ধানসহ বিভিন্ন ফসল চাষ করে থাকেন। গ্রাম ও মাঠের মধ্যদিয়ে প্রবাহিত খালের উপর কোন সেতু না থাকায় মাঠের ফসল ঘরে তুলতে তাদের দ্বিগুণ অর্থ ব্যয় হয়। এদিকে মাঠ ছাড়াও ওই খালের পশ্চিমে রয়েছে গ্রামবাসীর কবরস্থান। যেখানে লাশ বহনে তাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এদিকে ওই গ্রামে প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হয় ঐতিহাসিক সীতাতলার মেলা। যে মেলাকে কেন্দ্র করে হাজার হাজার লোক সেখানে সমবেত হন। তিন থেকে সাত দিন পর্যন্ত সেখানে বসে রকমারি জিনিষপত্রের দোকান। মেলাকে কেন্দ্র করে খালের পূর্ব ও পশ্চিম পাশে হাজার হাজার লোকের পদচারণায় এলাকা মুখরিত হয়ে উঠে। কিন্তু খালের উপর কোন সেতু না থাকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নড়বড়ে বাঁশের সাঁকো দিয়েই পারাপার হতে হয় গ্রামবাসীর। 

একটি ব্রিজের অভাবে জামগ্রামবাসীদের জীবন-যাপনে এখনোও আধুনিকতার ছোঁয়া স্পর্শ করতে পারেনি। একটি ব্রিজের স্বপ্ন যেন স্বপ্নতেই থমকে আছে। একটি ব্রিজই এই অঞ্চলের মানুষদের অর্থনৈতিক ও আর্থ সামাজিক পরিবর্তনের চাকাকে থেমে রেখেছে। প্রতিনিয়তই জনপ্রতিনিধিরা এ খালের উপর ব্রিজ নির্মাণের কথা বললেও ভোটের পর তাদের আর দেখা মেলে না বলে স্থানীয়দের অভিযোগে।

জামগ্রামের বাসিন্দা জনি সোনার বলেন, বর্তমানে এই গ্রামে জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে অনেক লোক খালের পশ্চিম পারে জনবসতি গড়ে তুলেছেন। তাদের জরুরী স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে যাতায়াত ও কৃষি পণ্য পরিবহনে এখানে একটি সাঁকো নির্মাণ অতীব জরুরী। অনেক জনপ্রতিনিধিদের বলেও আমাদের এ দাবি বাস্তবায়ন হয়নি। ফলে এ গ্রামের হাজার হাজার মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

ভোঁপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন মন্ডল বলেন আমি ওই স্থান একাধিকবার পরিদর্শন করেছি। আমি ওই খালের উপর একটি ব্রিজ নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগকে লিখিত ভাবে জানিয়েছি। বরাদ্দ পেলেই কাজ শুরু করা হবে।
এলজিইডি নওগাঁর নির্বাহী প্রকৌশলী তোফায়েল আহম্মেদ বলেন, আমাকে এখন পর্যন্ত কেউ লিখিত ভাবে জানাইনি। তবে খোঁজখবর নিয়ে গ্রামবাসীদের সুবিধার্থে ওই খালের উপর একটি ব্রিজ নির্মাণের পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।

নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. আনোয়ার হোসেন হেলাল বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গিকার শহরের সুবিধা গ্রামে পৌছে দিতে আমরা বদ্ধ পরিকর। তবে সব প্রত্যন্ত এলাকার খবর আমার জানা থাকে না। সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষরা যদি তাদের নিজ নিজ সমস্যা আমাকে জানায় তাহলে পদক্ষেপ গ্রহণ করা খুব সহজ হয়। আমি জামগ্রামের খালের উপর একটি ব্রিজ নির্মাণের বিষয়ে আমি সংশ্লিষ্ট বিভাগকে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য নির্দেশনা প্রদান করেছি। আশা করি দ্রুতই ওই খালের উপর একটি ব্রিজ নির্মাণ করা সম্ভব হবে। 
 

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়